কেমন যাবে ২০২২ঃ ভবিষ্যতদ্রষ্টা নস্ট্রাদামুস ও বাবা ভাঙ্গার ভবিষ্যৎবাণী

বিশ্বের একজন জনপ্রিয় ফরাসি জ্যোতিবিদ এবং চিকিৎসক নস্ট্রাদামুস (Nostradamus) তাঁর বহুল ভবিষ্যৎবাণীর জন্য আজও সমানভাবে বিখ্যাত। ভবিষ্যৎবক্তা হিসেবে বিশ্বের জনপ্রিয় ব্যক্তিদের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় তিনি। ইতিহাসের কিছু বিখ্যাত ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ ভবিষ্যৎবাণী করে তিনি ইতিহাসে স্বনামধন্য হয়েছেন। ফরাসি বিপ্লব থেকে শুরু করে জার্মানির হিটলারের অভ্যুত্থান সবই তিনি বহু আগে থেকেই দেখতে পেয়েছিলেন এবং তদনুরূপ বক্তব্য রেখেছিলেন। বিশ্বের ইতিহাসের ভবিতব্য ঘটনাবলি সম্পর্কে লেখা তাঁর বই ‘দ্য প্রফেসিস’ই তাঁকে সারা বিশ্বে পরিচিতি দিয়েছিল। ২০২২ সাল সম্পর্কেও তিনি ভবিষ্যৎবাণী করেছিলেন। চলুন দেখা নেওয়া যাক নস্ট্রাদামুসের চোখে ২০২২।

■ বাড়বে মুদ্রাস্ফীতি :

নসট্রাদামুসের ভবিষ্যগণনা অনুসারে ২০২২ সালে মাত্রাতিরিক্ত বাড়বে মুদ্রাস্ফীতি। লাগামহীনভাবে দাম পড়বে মার্কিন ডলারের। নসট্রাদামুস জানিয়েছেন যে ২০২২ সালে সোনা,রূপা ও বিটকয়েন হবে একমাত্র সম্পদ যেখানে মানুষ বেশি টাকা বিনিয়োগ করতে চাইবেন।

■ গ্রহাণু হামলা:

নসট্রাদামুসের ভবিষ্যকথন অনুসারে ২০২২ সালে গ্রহাণুর সঙ্গে থাকা লাগতে পারে আমাদের পৃথিবীর। নসট্রাদামুসের মতে- এই গ্রহাণু হামলার ফলে এই গ্রহের কিছুটা অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বিশাল এক পাথর প্রবল বেগে ছুটে এসে সমুদ্রে পড়ার ফলে সমুদ্রে বিশাল জলোচ্ছ্বাস হবে এবং একটা পৃথিবীর বড় একটা অংশ অসমগ্ন হয়ে পড়বে। সমুদ্রের জলস্তর অনেকটাই বেড়ে যাবে।

■ তিন দিনের অন্ধকার:

২০২২ সালে পৃথিবীব্যাপী এক অশান্তির আবহাওয়া তৈরি হবে। এই অশান্তির প্রভাবে টানা ৭২ ঘন্টা ধরে পৃথিবী অন্ধকার থাকবে। তবে এই অন্ধকার মানে তিনি অরাজকতার অন্ধকার বলতে চেয়েছেন কিনা তা স্পষ্ট নয়। যাই হোক এই অভিজ্ঞতা পৃথিবীবাসীর কাছে মোটেও সুখের হবে না।

■ ফ্রান্সে ঝড় :

২০২২ সালে এক ভয়াবহ ঝড়ের কবলে পড়তে চলেছে ফ্রান্স নসট্রাদামুসের ভবিষ্যতকথন তেমনই ইঙ্গিত করছে। এই ঝড়ের কারণে অনেক জায়গায় অগ্নিকাণ্ড, বন্যা ও খরার মতো বিপর্যয় দেখা যাবে।

খাদ্যাভাব :
২০২২ সালে পৃথিবীজোড়া এক ভয়াবহ খাদ্যাভাব দেখা দেবে।

ভূমধ্যসাগরে বিস্ফোরণ :

২০২২ সালে ভূমধ্যসাগরে একটা বড় বিস্ফোরণ ঘটবে পরীক্ষামূলকভাবে মিসাইল প্রয়োগের কারণে মেনোরকা দ্বীপের কাছে এই বিস্ফোরণ হতে পারে।

■ পরমাণু হামলা:

নসট্রাদামুসের ভবিষ্যতকথন বলছে যে, ২০২২ সালে পরমাণু বোমা বিস্ফোরণ হতে পারে। এর ফলে পৃথিবীর জলবায়ুতে বিরাট পরিবর্তন ঘটে যাবে।পরমাণু বোমা বিস্ফোরণের ফলে পৃথিবীর অবস্থাও অনেকটা পাল্টে যাবে।

■ কৃত্রিম বুদ্ধির হামলা:

কম্পিউটার ও রোবট নাকি ২০২২ সালেই মানুষের মস্তিষ্কের উপর কব্জা করে ফেলবে। আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেলের কাছে হার মানবে মানুষ। এমনটাই জানিয়েছেন নসট্রাদামুস।

২০২২ সাল নিয়ে বাবা ভাঙ্গা’র ভবিষ্যদ্বানীঃ

বুলগেরিয়ার বাবা ভাঙ্গার শুনেছেন? ভ্যাঙ্গেলিয়া নাম পান্ডেড়া গুশতেরোভা ওরফে বাবা ভাঙ্গা হলেন একজন বিখ্যাত ভবিষ্যদ্রষ্টা, ১৯১১ সালে জন্য বাবা ভাঙ্গার। ১৯৯৬ সালে ৮৫ বছর বয়সে মৃত্যু হয় তাঁর।

যিনি সাম্প্রতিক অনেক ঘটনার সঠিকভাবে ভবিষ্যদ্বাণী করে গেছেন। বুলগেরিয়ান রহস্যময় এই ব্যক্তি যিনি শৈশব থেকে অন্ধ ছিলেন, তিনি তার অভ্যন্তরীণ দৃষ্টি, থেকে এমন কিছু ভবিষ্যদ্বাণী করে
এসেছেন যার অনেকগুলি সত্য বলে বিবেচিত হয়েছে। দৃষ্টিশক্তিহীন এই মহিলার ভবিষ্যদ্বাণী করার ক্ষমতা ছিল অসাধারণ।
তাঁর করা এমন কিছু ভবিষ্যদ্বাণী অক্ষরে অঙ্কুরে মিলে গিয়ে রীতিমতো তাক লাগিয়ে দেয় বিশ্ববাসীকে। বাবা ভাঙ্গার এই সব গণনার মধ্যে রয়েছে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন, আমেরিকায় ৯/১১ হামলা, মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে বারাক ওবামার নির্বাচন, সুনামির মতো ঘটনা।
২০০৪ সালের সুনামির ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন এবং জানিয়েছিলেন যে একটি বিশাল ঢেউ উপকূলকে ঢেকে ফেলবে এবং মানুষ মারা যাবে।

তাঁর ভক্তদের মনে বিশ্বাস যে ৫০৭৯ সাল পর্যন্ত ভবিষ্যদ্বাণী করে গিয়েছেন তিনি। অঃড়ভধসব অনুসারে, বাবা ভাঙ্গা ২০২২এর জন্য বেশ কয়েকটি
ভবিষ্যদ্বাণী রয়েছে। দেখে নেওয়া যাক ২০২২ সালের জন্য কী ভবিষ্যদ্বাণী করে গিয়েছেন তিনি।

• ভূমিকম্প এবং সুনামির বৃদ্ধি :

২০২২ সালে, অস্ট্রেলিয়া সহ এশিয়ার বেশ কযয়কটি দেশ বন্যার তীব্র অভিঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে জানিয়েছেন বুলগেরিয়ান এই ব্যক্তি।

● সাইবেরিয়ায় একটি প্রাণঘাতী
ভাইরাসের আবিষ্কার :

গবেষকদের একটি দল সাইবেরিয়ায় একটি প্রাণঘাতী ভাইরাস আবিষ্কার করবে যা এখন পর্যন্ত হিমায়িত ছিল। গ্লোবাল ওয়ার্মিংয়ের বিপর্যয়কর প্রভাবের কারণে, ভাইরাসটি মুক্তি পাবে এবং দ্রুত নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে।

• পানীয় জলের অভাব :

অনেক শহর এ বছর পানীয় জলের ঘাটতির জেরে সমস্যায় পড়বে। জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং নদীর দূষণের  ফলে বাড়বে পানীয় জলের জন্য সংগ্রাম। অনেক রাজ্য পানির নতুন উৎস খুঁজে বের করার জন্য নানা
উপায় নিয়ে পরীক্ষা চালাবে।

এলিয়েনরা পৃথিবী আক্রমণ করবে।পৃথিবীকে নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে ওমুয়ামুয়া’ নামে পরিচিত একটি গ্রহাণুকে পাঠাবে এলিয়েনরা। এমনকি মাটি স্পর্শ করার পর পৃথিবী থেকে তারা কাউকে বন্দিও করে নিয়ে যেতে পারে।

• ভারতে পঙ্গপালের আক্রমণ :
ভারতে পঙ্গপালের আক্রমণেরও ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন তিনি। যা ক্ষেতের ফসলকে নষ্ট করে দেবে।
এর ফলে দেশের খাদ্যভাণ্ডারে টান পড়তে পারে। খাদ্য সামগ্রীর দাম বাড়তে পারে।

• অস্বাভাবিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি :

ভারতে উষ্ণায়নের সতর্কতাও দিয়েছেন তিনি। তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ছাড়িয়ে যাওয়ার আভাস দিয়েছেন।

• ভার্চুয়াল দুনিয়া বাস্তব দুনিয়ার
ওপর প্রভাব ফেলবে :

২০০২- এ লোকেরা পর্দার সামনে।আগের চেয়ে বেশি সময় ব্যয় করবে। প্রযুক্তির প্রতি আমাদের ক্রমবর্ধমান আসক্তির কারণে, অনেক লোক নিম্নগামী
হবে এবং বিপজ্জনকভাবে কল্পনার জগতের সাথে বাস্তব দুনিয়াকে গুলিয়ে ফেলবে। গোটা বিষয়টা শুনে ভীতিকর লাগতেই পারে।

১৯৯৬ সালে বাবা ভাঙ্গার মৃত্যু হয়। তাই উপরের ভবিষ্যদ্বাণীগুলি তিনি করেছিলেন। কিনা তা নিশ্চিত করার কোনও উপায় নেই কারণ তার কোনও ভবিষ্যদ্বাণী লেখা হয়নি। এছাড়াও বেশ কয়েকটি ভবিষ্যদ্বাণী আগে ভুল বলেও প্রমাণিত হয়েছে। কিন্তু যদি কেউ ২০২২-এর জন্য এই ব্যক্তির
ভবিষ্যদ্বাণীর দিকে তাকায়, তবে তাদের অনেকগুলি বাস্তবসম্মত বলে মনে হতে পারে। আমরা দেখেছি
বছরের পর বছর ধরে, ভূমিকম্প এবং সুনামির সংখ্যা বেড়েছে এবং ২০২২। সালেও তাই এর সম্ভাবনা থেকেইযায়। কয়েক বছর আগে, সাইবেরিয়া পারমফ্রস্টে ৩০ হাজার বছরেরও বেশি সময় ধরে সুপ্ত থাকার পরে বিজ্ঞানীরা একটি ভাইরাসকে পুনরুজ্জীবিতকরেছেন।

সেখানে বরফ গলার সঙ্গে সঙ্গে আর কি কি ভাইরাস লুকিয়ে আছে তা সময়ই বলবে। বিশ্ব এখন যে পানীয়
জলের সংকটের মুখোমুখি হচ্ছে তা ভালভাবে নথিভুক্ত করা হয়েছে এবং এই ভবিষ্যদ্বাণীটি সত্যি হতে পারে তা বলার জন্য কোনও বিশেষজ্ঞের
প্রয়োজন নেই। গত দুই বছরে, ভারত নজিরবিহীনভাবে বড় আকারের পঙ্গপাল আক্রমণের মুখোমুখি হয়েছিল। সুতরাং, এই ভবিষ্যদ্বাণীটি সত্য হলে অবাক হওয়ার কিছু নেই। ইতিমধ্যেই মানুষ ভার্চুয়াল দুনিয়ার সঙ্গে পরিচিত। আমাদের শুধু অপেক্ষা করতে হবে এলিয়েন আক্রমণের
ভবিষ্যদ্বাণীটি সত্যি হয় কিনা।

আসছে আরো একটি নতুন বছর। বছরের এই সময়টিতে প্রত্যেক মানুষ নতুন বছরের একটি দুর্দান্ত শুরুর অপেক্ষায় থাকে, এই আশায় যে সামনের দিনগুলি পিছনের দিনগুলির চেয়ে আরও ভালো এবং উজ্জ্বল হবে। বিগত বছরগুলির সব খারাপ
অভিজ্ঞতাকে পেছনে ফেলে ২০২২ নতুন উদ্দমে শুরু করার পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছেন অনেকেই।ঠিক
মুহূর্তে সামনে এল এমন কিছু ভবিষ্যদ্বাণী যা হয়তো খুব একটা সুখকর নয়। যদি এইসকল ভবিষ্যদ্বাণী
সত্যিই প্রমাণিত হয় তবে মনে হচ্ছে না ২০২২ সাল খুব একটা ভালো সময় নিয়ে আসবে। তবুও আমরা নতুন
ভোরের আশায় নতুন সূর্যের প্রখর আলোয় অন্ধকারমুক্ত মুক্ত হোক আমাদের এই প্রিয় পৃথিবী।

 

সূত্র : ইন্ডিয়া টাইমস

Related posts

Leave a Comment